আওয়ামী লীগের মনোনয়ন গুঞ্জন ভেসে বেড়াচ্ছে বাতাসে বাতাসে

বার্তা জগৎ২৪ ডেস্ক

প্রকাশিতঃ ১৮ নভেম্বর ২০১৮ সময়ঃ বিকেল ৫ঃ০৮
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন গুঞ্জন ভেসে বেড়াচ্ছে বাতাসে বাতাসে
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন গুঞ্জন ভেসে বেড়াচ্ছে বাতাসে বাতাসে

 

আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে গতকাল (১৭ নভেম্বর) শনিবার সংসদীয় বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ সভায় দলের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা দলের সংসদীয় বোর্ডের নেতাদেরকে নিয়ে মনোনয়ন প্রার্থী চুড়ান্ত করেন। মনোনয়ন তালিকা চুড়ান্ত করা হলেও আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগে বিষয়টি গোপন রাখতে নির্দেশ দেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা। কিন্তু দলের সভাপতির আদেশ অমান্য করে মনোনয়ন পাওয়ার সংবাদ গোপনে প্রার্থীদের কাছে ফোনে পৌঁছে দিয়েছেন দলের সিনিয়র এক নেতা।

এবারের  নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘নৌকা প্রতীকে’ দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছেন ৪ হাজার ২৩ জন প্রার্থী। সকলে দলের সভাপতির সিদ্ধান্তকে সম্মান জানিয়ে মনোনয়ন না পেলেও মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনে কাজ করে যাবেন এমনটাই শুনা যাচ্ছিল। কিন্তু সংসদীয় বোর্ডের বিশেষ প্রতিনিধির কাছ থেকে বিশেষ কিছু মনোনয়ন প্রাপ্ত প্রার্থীদের কাছে আগে থেকে মুঠোফোনে খবর জানিয়ে দেওয়ার কারণে দলের নেতাকর্মীদের মাঝে হতাশা এবং ক্ষোভ বিরাজ করছে।

কেউ কেউ মনে করছেন, দলে নিজের অবস্থান জানান দিতেই তিনি দলীয় সভাপতির আদেশ উপেক্ষা করে এমন কাজটি করছেন। যা বিগত বছরগুলোতে কখনও দেখা যায়নি।

ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ বৈঠক শুরু হয়েছিল বোর্ডের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।

দলীয় সূত্রে তখন জানা গেছে, আগামী ৩০ ডিসেম্বর আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনের মনোনয়ন চূড়ান্ত করতেই এ সভায় বসেছিল দলটির সংসদীয় বোর্ড। 

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, এবারে তরুণদের বেশি করে মনোনয়ন দেওয়ার ইঙ্গিত করেছেন শেখ হাসিনা। তিনি জানিয়েছিলেন, মোট ভোটারের ৪০ শতাংশ তরুণ। মনোনয়নের ক্ষেত্রে এর প্রতিফলন থাকবে। কাউকে আত্মতুষ্টিতে ভোগা যাবে না।

তখন থেকে তরুণ মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মাঝে আলাদাভাবে আনন্দের সুবাতাস বইতে শুরু করেছিল৷  কিন্তু অপ্রত্যাশিতভাবে বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিদের মনোনয়ন পাওয়া সংবাদটি সারাদেশ ছড়িয়ে পড়ায় নেতাকর্মীদের মনে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। আগামী নির্বাচনে মনোনয়নবঞ্চিত প্রার্থী এবং তার অনুসারীদের দ্বারা দলের ক্ষতি হতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তারা মনে করছেন দলের সভাপতির আদেশ অমান্য করায় মনোনয়নবঞ্চিত প্রার্থী এবং তার অনুসারীরা মনোনয়ন বন্টন কে প্রশ্নবিদ্ধ করার সুযোগ পাবে।

 

বার্তাজগৎ২৪/ টি আই