ওজিলের অর্থায়নে ২১৯ জন অসুস্থ শিশুর অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে

বার্তা জগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯ সময়ঃ রাত ২ঃ১৬
ওজিলের অর্থায়নে ২১৯ জন অসুস্থ শিশুর অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে
ওজিলের অর্থায়নে ২১৯ জন অসুস্থ শিশুর অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে

দিদারুল ইসলাম:

জার্মানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং জনপ্রিয় ফুটবলার মেসুত ওজিল। সারা বিশ্বব্যাপী যে সমস্ত মুসলিম ফুটবলার খেলার মাঠেও ধর্ম অনুশীলনে সদা প্রস্তুত থাকেন,তাদের মধ্যে অন্যতম তিনি। একই সাথে এই জনপ্রিয় ফুটবলার প্রতিনিয়ত মানব সেবায় নিয়োজিত রাখেন নিজেকে।

মুমূর্ষ এবং দরিদ্র অসহায় শিশুদের পাশে দাঁড়াতে এর আগে তিনি ১ হাজার অসুস্থ শিশুর অপারেশনের দায়িত্ব নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। সেখান থেকে এবার প্রথম ধাপে ২১৯ জন শিশুর অপারেশনের মাধ্যমে সেই সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন শুরু করেছেন এই প্রজন্মের জনপ্রিয় ফুটবলার মেসুত ওজিল।

বড়দিনের সকালে একাধিক টুইটের মাধ্যমে সেই সমস্ত শিশুদের অপারেশনের আপডেট খবর ভক্তদের উদ্দেশ্যে আপডেট দিতে দেখা গেছে ওজিলকে।

ওজিলের অর্থায়নে বিগ শো চ্যারিটি নামের একটি সংস্থার মাধ্যমেই প্রথম ধাপে ২১৯ জন শিশুর অপারেশন পরিচালনা করা হয়েছে। বড়দিনের সকালে টুইট বার্তায় ওজিল লিখেছেন, ২১৯টি অপারেশন শেষ হয়েছে। কিন্তু এখনও অনেক দূর যেতে হবে! ২০১৯ সালের জুনে আমাদের বিয়ের সময় আমি এবং আমার সহধর্মিণী আমিনে যেমনটা ঘোষণা করেছিলাম, আমরা বিশ্বের ১ হাজার অভাবী এবং অসুস্থ শিশুর জীবন বদলে দেওয়া অপারেশনের ব্যয় বহন করব। বিশ্বকাপজয়ী জার্মান মিডফিল্ডার আরও লিখেছেন, কয়েক বছর ধরে সহযোগিতা করার জন্য বিগ শো চ্যারিটিকে ধন্যবাদ। বিয়েতে উপস্থিত থাকা সকল অতিথি এবং যেসব ভক্ত ও সমর্থক যারা দান করে পাশে থেকেছেন তাদেরও ধন্যবাদ। এবং আন্তর্জাতিক মেডিকেল টিম যারা এতে যুক্ত ছিলেন তাদেরও বিশেষ ধন্যবাদ। এক পর্যায়ে ওজিল বলেন,এটা তো কেবল শুরু, চলুন ২০২০ সালে আরও শত শত অভাবী শিশুকে সহায়তা করি। 

উল্লেখ্য বিগ শো এমন এক চ্যারিটি নেটওয়ার্ক যা ক্রীড়া তারকা এবং সমর্থকদের সঙ্গে জড়িত। এই চ্যারিটি নেটওয়ার্ক মূলত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিশুদের মেডিকেল অপারেশনে সহায়তা করে থাকে। যেসব দেশে চিকিৎসক, অর্থ এবং ওষুধের অভাব এমন সব দেশের শিশুদের নিয়ে কাজ করে এই সংস্থা। ২০১৪ বিশ্বকাপে জয়ের পর থেকেই এই সংস্থার সঙ্গে জড়িত ওজিল।  

এর আগে জার্মানির হয়ে ২০১৪ বিশ্বকাপ জেতার পর পুরস্কার হিসেবে পাওয়া ২ লাখ ৪০ হাজার পাউন্ডের পুরোটাই আয়োজক দেশ ব্রাজিলের ২৩ জন শিশুর অপারেশনের জন্য খরচ করেছিলেন ওজিল।  

এর পরে ওজিল ও তার সহধর্মিণী আমিনে নিজেদের বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার দিনে তুরস্ক ও সিরিয়ার ১৬টি শরণার্থী শিবিরের প্রায় ১ লাখ মানুষকে খাওয়ানোর দায়িত্ব নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। ঘোষণা অনুযায়ী খাদ্য বিতরণের জন্য পুরো অর্থ তিনি এরকুতের হাতে তুলে দেন। পরে এরকুতের আয়োজনে এই খাদ্য বিতরণ করে রেড ক্রস।

শুধুমাত্র তা নয় তুর্কি বংশোদ্ভূত জার্মানির সাবেক এ মিডফিল্ডার নিজের পূর্বপুরুষদের দেশ তুরস্কে প্রায় সময় দরিদ্রদের মাঝে অর্থ-সম্পদ দান করেন।একজন মুসলমান হিসেবে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার পাশাপাশি মানবতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলছেন বিশ্বের কোটি কোটি ফুটবল প্রেমীদের হৃদয়ে জায়গা করে নেয়া মেসুত ওজিল।

বার্তাজগৎ২৪/ এম এ 

 আরো পড়ুন

হিজাব পরায় সমাবর্তনে ঢুকতে বাঁধা দিল স্বর্ণ পদক জয়ী শিক্ষার্থীকে

 

Share on: