ঘুরে আসুন মেঘালয়ের রাজধানী শিলং

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ৪ ডিসেম্বর ২০১৯ সময়ঃ রাত ১ঃ৩৪
ঘুরে আসুন মেঘালয়ের রাজধানী শিলং
ঘুরে আসুন মেঘালয়ের রাজধানী শিলং

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

শিলং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী। শিলং সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৪৯০৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত। এ কারণে এখানে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়। বার্ষিক বৃষ্টিপাতের পরিমাণ প্রায় ১১৪৩০ মিলিমিটার। ১৮৯৭ সালে ভূমিকম্পে শহরটি ধ্বংস হয়ে যায় এবং পুনরায় শহরটি নির্মাণ করা হয়। প্রতিবছর লক্ষলক্ষ পর্যটক আসে শিলংয়ে। একসময় শিলংকে প্রাচ্যের স্কটল্যান্ড বলা হতো।

শিলংয়ের দর্শনীয় স্থান সমূহ: এশিয়ার সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন গ্রাম মাওলিননং ভিলেজ ছাড়াও শিলংয়ে রয়েছে উমিয়াম লেক, এলিফ্যান্ট জলপ্রপাত, শিলং পার্ক বা শিলং ভিউপয়েন্ট, গল্ফ লিঙ্ক, ওয়ার্ড’স লেক, লাইটলুম ক্যানিয়ন, অল সেন্টস চার্চ, চেরাপুঞ্জি এবং কেনাকাটার জন্য প্রসিদ্ধ পুলিশ বাজার।

যে সময়ে শিংল ভ্রমণ করবেন: বর্ষাকাল শিলং ভ্রমণের উপযুক্ত সময়। এসময় শিলংয়ের পাহাড়গুলো সবুজের সমারোহে ভরে থাকে এবং ঝর্ণাগুলো পূর্ণতা পায়। তাই সবচেয়ে ভালো হবে জুন থেকে সেপ্টেম্বর এই সময়ে গেলে।

আপনি কিভাবে শিলংয়ে যাবেন: বাংলাদেশ থেকে আকাশ পথে এবং সড়ক পথে দুভাবেই শিলং যাওয়া যায়। ঢাকা থেকে সরাসরি শ্যামলী পরিবহণের বাসে চড়ে শিলং যেতে পারেন। প্রতি বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা থেকে শিলংয়ের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। তাছাড়া সায়দাবাদ এবং মহাখালী বাসস্ট্যান্ড থেকে এনা, ইউনিক, হানিফ পরিবহন সিলেটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। সিলেটগামী বাসে উঠে কদমতলী নেমে ওখান থেকে লোকালবাস বা সিএনজি করে তামাবিল বর্ডার। আপনি চাইলে ট্রেনে করে ঢাকা থেকে সিলেট আসতে পারেন। তামাবিল ইমিগ্রেশন শেষ করে ডাউকি থেকে ট্যাক্সি নিয়ে সরাসরি শিলং চলে আসতে পারবেন।

যদি ভারতের অন্যান্য স্থান থেকে ট্রেনে করে আসতে চান তবে মনে রাখুন মেঘালয়ে কোনও রেলপথ নেই। তবুও রেলপথকে যদি বেছে নেন তবে সর্বোচ্চ গুয়াহাটি রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত ট্রেনে আসতে পারবেন। গুয়াহাটি থেকে শিলং যাওয়ার জন্য প্রচুর বাস এবং ক্যাব পাবেন। গৌহাটি থেকে গাড়িতে শিলং যেতে সাড়ে তিন ঘন্টার মতো সময় লাগে।

আর যারা আকাশপথে শিলং যেতে চান তাদের উমরোই বিমানবন্দর (অন্য নাম শিলং বিমানবন্দর) নামতে হবে। শিলং শহরের সবচেয়ে কাছে অবস্থিত এই বিমানবন্দরের দূরত্ব প্রায় ২৭ কিলোমিটার। কলকাতা এবং ভারতের বিভিন্ন স্থান থেকে বেশকিছু ফ্লাইট এই বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

শিলং এ কোথায় থাকবেন: শিলং শহরে বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। আপনি যদি বাজেট ট্রাভেলার হয়ে থাকেন তবে হোটেল নাইট ইন্, পাইন সুইটস হোটেল কিংবা শিলং ক্লাব গেস্টহাউসে সহজেই রাত্রিযাপন করতে পারবেন। আর মাঝারি মানের হোটেলের মধ্যে হোটেল সেন্টার পয়েন্ট এবং হোটেল আ্যলপাইন কন্টিনেন্ট্যাল বেশ জনপ্রিয়। শিলংয়ের একমাত্র ফোর স্টার মানের আবাসিক হোটেলের নাম ‘হোটেল পোলো টাওয়ারস’। সিজন অনুযায়ী ভাড়া কম বেশি হয়ে থাকে। আর হোটেল বুক করার আগে দামাদামি করে নেওয়াই ভালো।

১২০০ থেকে ৪০০০ রুপি ভাড়ায় থাকতে পারবেন

বউলভার্ড হোটেল: +91-364-2229823, +91-364-2229044

দি ই সি হোটেল: +91-364-2500188, 9206043888

হোটেল ইয়ালানা: +91-364-2211240, +91-364-2226059

হোটেল রেইনবো: +91-364-2222534

হোটেল এম্বাসি: +91 364 222 3164

এছাড়াও শিলং পুলিশ বাজারে একটু খোঁজখবর করলে অসংখ্য আবাসিক হোটেলের মধ্য থেকে আপনার সাধ ও সাধ্যের মধ্যে থাকার হোটেল পেয়ে যাবেন। অনেক হোটেলে বাংলাদেশী বা বিদেশীদের রাখতে চায়না তাই আগেই খোঁজ নিয়ে যাওয়া উচিত কোন কোন হোটেলে আপনি থাকতে পারবেন।

কোথায় খাবেন: শিলংয়ে প্রচুর খাবারের হোটেল বা রেস্টুরেন্ট রয়েছে। এখানকার রেস্টুরেন্টে পর্ক (শুকরের মাংস), চিকেন এবং মাছ বেশী পাওয়া যায়। জনপ্রিয় রেস্টুরেন্টের মধ্যে রয়েছে জিঞ্জার রেস্টুরেন্ট, স্ক্যাই গ্রিল, কেনমোর, শিপ আ্যন্ড ডাইন রেস্টুরেন্ট, শেফ’স মাল্টি কিউজিন রেস্তোঁরা এবং সিসেম।

কেনাকাটা: শিলং এ কেনাকাটার জন্যে খুব বেশি অপশন নেই। তবে শিলং এ কেনাকাটা করতে চাইলে পুলিশ বাজারের বিকল্প নেই। এছাড়া চেরাপুঞ্জির যাওয়ার পথে সোহরাবাজার থেকেও কেনাকাটা করতে পারবেন। সোহরাবাজার কমলালেবুর মধু, দারচিনি আর চেরি ব্র্যান্ডির জন্য প্রসিদ্ধ।

শিলং ভ্রমণ টিপস: ডলার এক্সচেঞ্জ করতে চাইলে শ্যামলী কাউন্টার থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য জেনে নিতে পারবেন। এছাড়া শিলংয়ে পুলিশ বাজারের বেশকিছু মানি এক্সচেঞ্জের দোকান আছে। তবে শিলং যাবার আগেই আপনার যেহেতু রুপির প্রয়োজন হবে তাই উচিৎ হবে নিয়ম মেনে সাথে কিছু টাকা নিয়ে যাওয়া এবং ডাউকি বাজারে রুপিতে এক্সচেঞ্জ করে নেওয়া।

শিলং ভ্রমণে সবচেয়ে ভালো হবে ৪ জন অথবা ৬-১০ জনের গ্রুপ হলে। এতে করে গাড়ি সহজে শেয়ার করা যায়। ৪ জনের গ্রুপ হলে টেক্সি রিসার্ভ করতে পারবেন এবং তার বেশি হলে ম্যাক্সি রিসার্ভ করতে পারবেন। গ্রুপ সংখ্যা ঠিক মত হলে খরচ কম হবে।

রবিবার শিলং এর সবকিছু বন্ধ থাকে। শপিং মল থেকে শুরু করে সব ধরণের দোকান। তাই কেনাকাটার জন্য রবিবার ছাড়া প্ল্যান করুন। আর ভ্রমণ পরিকল্পনায় এই বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখবেন।

শিলং এর সব দোকান সকাল ১০ টায় খুলে এবং রাত ৯ টার ভিতর সব বন্ধ হয়ে যায়। রাত ৯ টার পর কোন কিছু খোলা পাবেন না, এমনকি খাবার হোটেল ও না। তাই খাওয়া দাওয়া সহ অন্য সব কাজ আগেই শেষ করে ফেলুন।

জেনে রাখুন: শিলংয়ে বর্তমানে বিদেশিদের মোবাইল সিমকার্ড পেতে ঝামেলায় পড়তে হয়। বলতে হবে আপনি সিমকার্ড পাবেনই না। তাই যেসব হোটেলে ওয়াইফাই আছে চেষ্টা করবেন সেখানে উঠতে অথবা আগে থেকেই একটা সিমকার্ডের ব্যবস্থা করতে। শিলংয়ে যাবার আগে শিতের কাপড়, ছাতা/ রেইনকোট সাথে নিতে ভুলবেন না। 

বার্তাজগৎ২৪/ এম এ

Share on: