'ছাত্রলীগের আদর্শকে ক্রমাগত ধর্ষণ করছে শোভন-রাব্বানী'

বার্তা‌জগৎ২৪ ডেস্কঃ

প্রকাশিতঃ ১৯ অগাস্ট ২০১৯ সময়ঃ রাত ৯ঃ৪৬
'ছাত্রলীগের আদর্শকে ক্রমাগত ধর্ষণ করছে শোভন-রাব্বানী'
'ছাত্রলীগের আদর্শকে ক্রমাগত ধর্ষণ করছে শোভন-রাব্বানী'

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

এই ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে বের হয়ে গেছে আরো এক যুগ আগেই। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার আদর্শের মিনিমাম ধারে কাছেও নেই ছাত্রলীগ। একজন জিজ্ঞেস করলো, কার আদর্শে আছে এখন ছাত্রলীগ? উত্তরে বললাম, পেয়ারের আদর্শে। জিজ্ঞেস করলো, মানে ? বললাম মানে হইলো, শোভন-রাব্বানী সব কিছু করে যাবেন নিজের মত করে। যখন ধরা খেয়ে যাবেন, জিজ্ঞেস করলে অস্বীকার করবে। প্রমাণ হাজির করলে উল্টো হাতে মুখ মুছে বলে দিবে অস্তাগফিরুল্লাহ লা হাওলা এইসব ইডিট করা যায়। 

জামাত শিবির নেজামী ইসলাম খেলাফত মজলিশ তিন দলের মতাদর্শের নেতা বা কর্মীদের দিয়ে যখন বঙ্গবন্ধুর শোক দিবসে কোরআন খতম, হামদ-নাত, 'জাগ্রত বালছাল' আপনি হাজির করবেন। তখন কোন ভাবেই ঐ সব প্রচার প্রচারনার পোস্টার, ফেস্টুন ডেংলারে বঙ্গবন্ধুর ছবি থাকবে না থাকতে পারে না কারণ এতে ওদের ঈমান নষ্ট হয়ে যাবে। এর পক্ষে যৌক্তিক ব্যাখ্যা আছে। প্রাসঙ্গিক বঙ্গবন্ধু নাস্তিক এই প্রচার বাংলাদেশে কখন কোন সময় থেকে প্রচার হয়েছে, কারা প্রচার করেছে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে হবে আপনাকে। হয়তো উত্তর আপনার জানা নেই, বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন প্র্যাক্টিস মুসলিম। তারপরেও যখন পাকিস্তান দ্বিখণ্ডিত করার আন্দোলন তুঙ্গে ঠিক তখন এই অঞ্চলে মুসলিমদের কে ঐক্যবদ্ধ করতে বা রাখতে জামাতে ইসলাম, নেজামী ইসলাম, খেলাফত মজলিশের শীর্ষ নেতারা তাদের বক্তব্য বিবৃতিতে প্রকাশ্যেই বঙ্গবন্ধুর নামের পিছনে নাস্তিক লাগিয়ে প্রচার শুরু করে। সেই থেকেই শুরু। সর্বশেষ ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে মতিঝিলে হেফাজতের শাপলা চত্ত্বরের সমাবেশে খেলাফত মজলিশের কোন এক নেতা প্রকাশ্যে বঙ্গবন্ধুকে নাস্তিক বলে বিচার চেয়েছে। সেই তাদের আদর্শিক নেতা কর্মী ছেলে মেয়েরা বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু বার্ষিকীতে কুরআন খতম দিবে, হামদ নাত গাইবে। বিষয়টা এতোই নিম্নমানের হাস্যকর, যে ভাবতেই আপনার শরীর ঘিন ঘিন করবে। প্রতিক্রিয়া দিবেন কখন বুঝতেই পারবেন না। 

আবারো স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি শোভন ও গোলাম রাব্বানী নামের দুই ব্যাক্তি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আদর্শিক যা ক্ষতি করেছে সেই ক্ষতি পুষিয়ে উঠার জন্য হয়তো এই বাংলাদেশে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আর কোনদিন সময় পাবে না। ছাত্রলীগ চলবে, অমুক, তমুক, সমুক কমিটি হবে, গরু ছাগল ভেড়া হাতি মহিষ কমিটির নেতা বা কর্মী হবে। কিন্তু ফ্লেভারড আদর্শিক ছাত্রলীগ কখনো আর ফিরবে না। গ্যারান্টি লিখে রাখেন। 

আমি জানি না, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কি এইসব দেখেও দেখে না নাকি একেবারেই দেখে না। কিন্তু এটা সত্য বাংলাদেশে আদর্শিক রাজনীতির জন্মের বীজতলা বা আতুরঘড় ছিল বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। সেই ছাত্রলীগ কে ক্রমাগত নানান ভাবে ধর্ষণ করতে করতে শোভন আর রাব্বানী নিজেদের নিয়ে গেছে অন্য এক উচ্চতায়। যার মাশুল হয়তো আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার না দিলেও, আওয়ামী লীগে রাজনীতির আগামী প্রজন্মের দিতে হবে।

সুলতান মির্জার ফেসবুক পেজ থেকে।

বার্তাজগৎ২৪/এম এ