তীব্র বালু সংকটে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজে ব্যাহ্যত

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ২ ফেব্রুয়ারী ২০২০ সময়ঃ সন্ধ্যা ৬ঃ৪৫
তীব্র বালু সংকটে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজে ব্যাহ্যত
তীব্র বালু সংকটে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজে ব্যাহ্যত

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বালুর তীব্র সংকটের কারণে রাজারহাটে এলজিডি, এডিপি, এলজিএসপিসহ বিভিন্ন প্রকল্পের প্রায় ১০০ কোটি টাকার উন্নয়নমূলক কাজ বন্ধ রেখেছেন ঠিকাদারগণ। 

এছাড়া পাকা করণের জন্য নতুন টেন্ডারকৃত রাস্তাগুলোর ওয়ার্ক পারমিট হলেও বালু সংকটের কারণে বক্স্র কার্টিং করতে পারছেন না ঠিকাদারগণ। এতে রাজারহাট উপজেলাজুড়ে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ ব্যাহত হচ্ছে। 

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউপির বিজলী বাজার থেকে কালিরহাট বাজার পর্যন্ত ১ কোটি ৬০ লাখ টাকার ১৫০০ মিটার,প্রয়াত সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল হাসেমের বাড়ির থেকে কালিরহাট পর্যন্ত ৫০০ মিটার, চাকিপশার ইউপির ফুলখাঁর চাকলা বাজার পাকার মাথা হতে সাকোয়া উ:বি: পর্যন্ত ১৭৫০ মিটার, মিলেরপাড় বাজার থেকে ফুলখাঁর চাকলা পর্যন্ত ১৩০০ মিটার, লালের তেপোতি থেকে জাকিরের বাড়ি পর্যন্ত ১৩৫০ মিটার, রাজারহাট রেলগেট বটতলা বাজার থেকে চাকিপশার হাফেজিয়া মাদরাসা পর্যন্ত ২২৫০ মিটার, উমরমজিদ ইউপির বটতলী বাজার হতে জোড়সয়রা ২৭৫০ মিটার, ফরকেরহাট ফেডারেশন পাকার মাথা থেকে পাঁচপীর রোড পর্যন্ত ১৭৮০ মিটার, রাজারহাট সদর ইউপির চেয়ারম্যান এনামুল হকের বাড়ি সামন থেকে পুনকর মৌজার বটতলা পর্যন্ত ১০৭২ মিটার, পুনকর মৌজার শিমুলতলা থেকে ভাটারপাড় পর্যন্ত ৯৩৫ মিটার,আজগারের বাড়ি থেকে কাঠমিস্ত্রি বক্করের বাড়ি পর্যন্ত ৩৮৫ মিটার পাকা রাস্তার কাজ বালু সংকটের কারণে বন্ধ রেখেছেন ঠিকাদাররা।

ঠিকাদার খাইরুল এন্টারপ্রাইজ এর ম্যানেজার মো.সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বলেন, বিগত ৭-৮ মাস পূর্বে রাস্তা পাকা করণের জন্য বক্স কার্টিং করে রেখেছি, বালু সংকটের কারণে রাস্তার ফাইলিং করতে পারছি না। তাই রাস্তার কাজ বন্ধ রেখেছি।

ঠিকাদার শফিকুল ইসলাম জানান, রাজারহাট থেকে চিলমারীর দুরত্ব প্রায় ৪০ কি:মি: সেখানে থেকে বালু এনে কাজ করা প্রায় অসম্ভব। তাই রাস্তার কাজ বন্ধ রেখেছি।

রাজারহাট উপজেলা প্রকৈৗশলী আবু তাহের মো. শফি উল্ল্যাহ বলেন, এ বিষয়ে আমার কোন কিছুই বলার নেই। আপনারা উপজেলায় সর্বত্র থাকেন সবই জানেন এবং বুঝেন এ ব্যাপারে আমার আর নতুন করে বলার কি আছে!

রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহা: যোবায়ের হোসেন বলেন, আমি চাই ঠিকাদারগণ বৈধভাবে বালু সংগ্রহ করে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজগুলো অব্যাহত রাখুক এবং আইনগতভাবে অবৈধ বালু উত্তোলন করার কোন সুযোগ নেই।

বার্তাজগৎ২৪/সা/হ

Share on: