নেত্রীকে ভুল প্রমাণে মাঠে নেমেছে 'রাব্বানী'!

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সময়ঃ বিকেল ৩ঃ১৯
নেত্রীকে ভুল প্রমাণে মাঠে নেমেছে 'রাব্বানী'!
নেত্রীকে ভুল প্রমাণে মাঠে নেমেছে 'রাব্বানী'!

ফেসবুকের পাতা থেকে:

তিনদিন হলো ছাত্রলীগের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে শোভন রাব্বানীকে। ইতিমধ্যে শোভন নিজের ব্যর্থতা স্বীকার করে এবং নেত্রীর মনে কষ্ট দিতে চান না বলে সিনেট থেকেও অব্যাহতি নিয়েছেন। গতকদিনে গণমাধ্যমের মুখোমুখিও হননি তিনি। কিন্তু নেত্রীর সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করতে বিভিন্ন কূটকৌশল ও মিডিয়ার আশ্রয় নিচ্ছেন গোলাম রাব্বানী। তিনি এখনো তার আত্মপক্ষ সমর্থন করে যাচ্ছেন। ব্যাপারটা এমন তিনি দুধে ধোঁয়া তুলসীপাতা। তিনি প্রথম আলোকে বলেছেন তিনি নাকি জাবি ভিসির কাছে ঠাট্টাচ্ছলে ঈদ সালামি চেয়েছেন। এমটি নাকি বঙ্গবন্ধুও বলেছিলেন, "সাত কোটি বাঙ্গালির আটকোটি কম্বল, তো আমারটা কই?" কিসের সাথে কিসের তুলনা একবার ভেবেছেন? তার অনুসারীরা এটাও প্রচার চালাচ্ছে যে তিনি নাকি ১৫ দিনের মধ্যে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কামব্যাক করবেন। ধরলাম জাবির বিষয়টিও ভুল প্রমাণিত হলো কিন্তু তাদের শোকজ করার একমাত্র কারণ কিন্তু জাহাঙ্গীর নগর ছিলো না মনে আছে? 

অনেকগুলো অভিযোগ নিয়ে যখন তোলপাড় শুরু হয় তখনি থলের বিড়াল হিসেবে বেরিয়ে আসে জাহাঙ্গীর নগর আর কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রসঙ্গ। আরেকবার দেখে নেই শোভন রাব্বানী বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো আসে সিনিয়র নেতৃবৃন্দ এবং গোয়েন্দা সংস্থা থেকে.....              

>> অনৈতিক আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে বিতর্কিতদের ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে জায়গা দেওয়া।

>> সংগঠনের সম্মেলনের পরও একাধিক শাখায় কমিটি না দেওয়া, বিলাসী জীবন, দুপুরের আগে ঘুম থেকে না ওঠা, সাংবাদিকদের এড়িয়ে চলা অথবা ফোন না ধরা।

>> আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের ফোন না ধরা। 

>> দলীয় কার্যালয়ে স্বয়ং গোয়েন্দা সংস্থা কর্তৃক মদ ও ফেনসিডিল বোতল উদ্ধার।                

>> সংগঠনের একাধিক অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েও নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে উপস্থিত হওয়ার অভিযোগ।

>> ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শোভনের বিয়ের অভিযোগ রয়েছে। একইসঙ্গে দুই নেতার বিরুদ্ধে ওঠা সংগঠনের নেত্রীদের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলার অভিযোগ। 

>> ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ভবনে নিজের কক্ষে এসি লাগিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েন গোলাম রাব্বানী।

>> ছাত্রলীগের পদ পাওয়ার পর থেকেই শোভন ও রাব্বানী রাজধানীর কাঁঠালবাগান ও হাতিরপুলে যথাক্রমে ৭০ হাজার ও ৪০ হাজার টাকার ভাড়া ফ্লাটে জীবনযাপন শুরু করেন।

>> গত বছর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পরদিন থেকে রাব্বানী টয়োটা কোম্পানির নোয়া মডেলের একটি মাইক্রোবাস ব্যবহার করতে শুরু করেন।        

এ রকম আরো কয়েক ডজন অভিযোগ আসে তাদের বিরুদ্ধে। যে কারণে তাদের সরিয়ে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি- সাধারণ সম্পাদক করা হয় জয়-লেখকদের। ইতোমধ্যে চুপ থেকে শোভন ভাই যখন প্রশংসা কুড়াচ্ছেন সেখানে একের পর এক মিডিয়াবাজি করে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণে ব্যস্ত সাধারণ সম্পাদক। যা তার আগের স্বভাব। 

তারমানে নেত্রী বা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ভুল, আর রাব্বানী ঠিক এইতো? 

আমার মনে হয় ভবিষ্যৎ রাজনীতিতে ওনার কামব্যাক করার সম্ভাবণাটুকুও নষ্ট করছেন তিনি। তাঁর চুপ থাকাটা জরুরি বেশি। শুভ বুদ্ধির উদয় হোক আপনার প্রিয়/অপ্রিয় রাব্বানী ভাই।

আব্দুর রহমান শ্রাবণ

ছাত্রলীগ নেতা। 

Share on: