বিজ্ঞাপনে জনপ্রতিনিধির ভূমিকা নেয়ায় বাতিল হওয়ার পথে মিমির সংসদ সদস্য পদ

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ২৪ জানুয়ারী ২০২০ সময়ঃ দুপুর ২ঃ৩৫
বিজ্ঞাপনে জনপ্রতিনিধির ভূমিকা নেয়ায় বাতিল হওয়ার পথে মিমির সংসদ সদস্য পদ
বিজ্ঞাপনে জনপ্রতিনিধির ভূমিকা নেয়ায় বাতিল হওয়ার পথে মিমির সংসদ সদস্য পদ

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্কঃ

গতবছর ভারতের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হওয়ার সময়ই প্রশ্ন উঠেছিল টালিউড অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীকে নিয়ে। বিপুল ভোটে জিতলেও প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে বার বার। একাধিকবার বিভিন্ন বিতর্কে পড়েছেন অভিনেত্রী। এবার এক বেসরকারি সংস্থার বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনে কাজ করে প্রশ্নের মুখে পড়লেন যাদবপুরের তৃণমূল সাংসদ মিমি।

সম্প্রতি চুলের তেলের বিজ্ঞাপনে দেখা যায়, মিমি নিজেকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন। এ কারণে অফিস অব প্রফিট বিতর্কে পড়েছেন তিনি। এই আইনের আওতায় মিমির সাংসদপদ বাতিল হবে কিনা, তা নিয়েও ভারতের রাজনৈতিক মহল ও সংবিধান বিশেষজ্ঞরা ভাবছেন। 

জানা গেছে, মিমি সংসদ সদস্য হিসেবে আচরণ বিধি লঙ্ঘন করেছেন। নিয়ম আছে, বাণিজ্যিক সংস্থার স্বার্থে একজন সাংসদ তার জনপ্রতিনিধি পরিচয় ব্যবহার করতে পারবেন না।

উল্লেখ্য, ওই তেল কোম্পানির সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে যুক্ত মিমি চক্রবর্তী। সংস্থার বাংলা বিজ্ঞাপনের মুখ হিসেবে তাকেই দেখা যেত। এতদিন অভিনেত্রী কিংবা তারকা পরিচয় ব্যবহার করে ওই তেল কোম্পানির হয়ে প্রচার চালিয়েছেন মিমি। কিন্তু এবার বিজ্ঞাপনের সংলাপে জনপ্রতিনিধি শব্দটি নিয়েই আপত্তি উঠেছে। বিজ্ঞাপনে তৃণমূল সাংসদ মিমি চক্রবর্তীর সঙ্গে বলিউড অভিনেত্রী বিদ্যা বালানকেও দেখা যায়। সেখানে দেখা গিয়েছে, একটি আয়নার সামনে বসে চুল বাঁধছেন মিমি। পেছন থেকে বিদ্যা হেঁটে এসে প্রশ্ন করেন, এখনও চুল নিয়ে পড়ে? জবাবে মিমি বলেন, আমি এখন জনপ্রতিনিধি, তার যোগ্য হেয়ারস্টাইল! এই দৃশ্য নিয়েই বিতর্কের সৃষ্টি।

বিষয়টি নিয়ে মিমি জানান, এসব নিয়মকানুন তিনি জানতেন না। তাকে যা পড়তে বলা হয়েছিল, তিনি সেটাই পড়েছেন। তবে সংস্থার সঙ্গে কথা বলে বিতর্কিত অংশটি বাদ দেওয়ার কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন অভিনেত্রী।

বার্তাজগৎ২৪/সা/হ

Share on: