যে কারণে সাকিবই হচ্ছেন টুর্নামেন্ট সেরা!

বার্তা জগৎ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ১৪ জুলাই ২০১৯ সময়ঃ বিকেল ৪ঃ২৭
যে কারণে সাকিবই হচ্ছেন টুর্নামেন্ট সেরা!
যে কারণে সাকিবই হচ্ছেন টুর্নামেন্ট সেরা!

 

ইয়াছিন আরাফাতঃ

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ২০১৯ বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার হতে চলেছেন সাকিব আল হাসান। সেমিফাইনালে খেলতে না পারলে টুর্নামেন্ট সেরা হতে পারবেন না বলে যে গুঞ্জন উঠেছিল সেটা পুরোপুরি মিথ্যা ও বানোয়াট খবর বলেই বুঝা গেল। একদিকে সেমিফাইনাল ও ফাইনাল দুই ম্যাচ এবং লঙ্কানদের বিপক্ষে এক ম্যাচ সহ মোট তিন ম্যাচ কম খেলেও টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার দৌড়ে সব থেকে এগিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই পোস্টার বয়। আমাদের আজকের প্রতিবেদনে আলোচনা করব যে কিভাবে সেমিফাইনাল ও ফাইনাল না খেলেও সবাইকে পাশ কাটিয়ে টুর্নামেন্ট সেরা হতে চলেছেন সাকিব। থাকছে সাকিবের বাকি প্রতিদ্বন্দ্বীদের পারফরম্যান্স নিয়েও আলোচনা।

 

আমরা আজকে বললেও বিশ্বকাপ শুরুর আগে জনপ্রিয় ও প্রভাবশালী ব্রিটিশ পত্রিকা 'দ্যা টেলিগ্রাফ' রীতিমতো ঘোষণা দিয়ে ফেলোছিলো সাকিব যে অবিসংবাদিতভাবে ২০১৯ বিশ্বকাপে ক্রিকেটের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় তা নিয়ে কোন বিতর্ক নেই। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে তিনটি বিশ্বকাপ জেতা সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক রিকি পন্টিং ভবিষ্যৎবাণী দিয়েই রেখেছিলেন এবারের বিশ্বকাপের মাঠেও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করবেন সাকিব। আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে সাইড স্ট্রেইনের ইনজুরিতে পরা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান বিশ্বকাপ শুরুর আগে ঠিকই ফিট হয়ে উঠে এবং ব্যাট বল হাতে ক্রিকেট বিশ্বকে মাতিয়ে রাখেন। গোটা বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে কতটা ধারাবাহিকতা দেখিয়েছেন সেটি বোঝার জন্য পরিসংখ্যানই যথেষ্ট। ৮ ম্যাচে ৮৬.৫৭ গড়ে ও ৯৬.০৩ স্ট্রাইক রেটে ২ সেঞ্চুরি এবং ৫ হাফ সেঞ্চুরিসহ ৬০৬ রান করেছেন সাকিব। যে তিনটি ম্যাচ বাংলাদেশ জিতেছে তার সব কয়টি ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠেছে ফ্যান্টাসি- ৭৫'র হাতে।সেমিফাইনালের আগে বাংলাদেশ বিদায় না নিলে তার রান সংখ্যা আরও উপরের দিকে থাকতো এ কথা নিঃসন্দেহে বলাই যায়। বিশ্বকাপের কোন ম্যাচে একই সাথে হাফ সেঞ্চুরি ও ৫ উইকেট শিকারে ভারতের সাবেক তারকা অলরাউন্ডার যুবরাজ সিংয়ের পর আারেক বাঁ হাতি অলরাউন্ডার হিসেবে এবার ইতিহাসে নিজের নাম লিখিয়েছেন টাইগার সাকিব। মোট ৮ ম্যাচে নিয়েছেন ১১ উইকেট। তাতেই এবারের আসরের সেরা ক্রিকেটার হবার সম্ভাবনা উঁকি দিচ্ছে মিষ্টার বাংলাদেশ খ্যাত এই ক্রিকেটারকে। সাকিবের এমন অতিমানবীয় পারফরম্যান্স শুধু মাত্র সমর্থকরাই দেখেন নি তার পাশাপাশি অতিমানবীয় এই পারফর্ম আইসিসির চোখ মোটেও এড়িয়ে যায় নি। নিজস্ব ওয়েবসাইট থেকে আইসিসি ৯ জুলাই বাংলাদেশ দলের পারফরম্যান্স বিচার বিশ্লেষণ করে তাদের রিপোর্ট কার্ড প্রকাশ করে আর তাতে সাকিবকে নিয়ে যা লেখা হয়েছে তা জানা মাত্র একজন বাংলাদেশী হিসেবে গর্বের সীমা থাকার কথা নয়। আইসিসি পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিয়েছে গত এক দশক ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেট মানেই সাকিব আল হাসান। এই বিশ্বকাপ প্রকৃতি অর্থ সাকিবের বিশ্বকাপ। ঈর্ষণীয় ধারাবাহিকতার পরিচয় দিয়ে ৮ ম্যাচের ৭ টিতে তিনি পঞ্চাশের ওপর রান করেছেন। তার সর্ব নিম্ন স্কোর ৪১। বল হাতেও কম সফল নন। ৮ ম্যাচে পেয়েছেন ১১ উইকেট। গুরুত্বপূর্ণ সব উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের দিকে ম্যাচ ঘুরিয়ে দিয়েছেন একাধিকবার। ১০ দলের মধ্যে ৭ নম্বর স্থানে থেকে টাইগারদের বিশ্বকাপ মিশন শেষ করায় বাংলাদেশ দলের সমর্থকরা হতাশ। অন্তত সেমিফাইনালে না যাওয়ায় সাকিবের টুর্নামেন্ট সেরা না হওয়ার সম্ভাবনা শেষ হয়ে  গেছে বলে অনেকেই ধরে নিয়ে মন খারাপ করে আছেন। তবে আইসিসির করা মন্তব্যের ফলে সমর্থকরা নতুন করে আশা দেখতে পারেন। আইসিসি সাফ জানিয়ে দিয়েছে বিশ্বের এক নাম্বার অলরাউন্ডার সাকিব নিঃসন্দেহে বিশ্বকাপ ২০১৯ এর প্লেয়ার অফ দ্যা টুর্নামেন্ট খেতাবের অন্যতম দাবিদার। বিশ্বকাপ চলাকালে ডেবিড ওয়ার্নারের সঙ্গে সর্বাধিক রান সংগ্রাহকের দৌড়ে পরস্পর পরস্পরকে টপকে যাচ্ছিলেন। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেন রোহিত শর্মাও।বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম কোন ব্যাটসম্যান হিসেবে সাকিব বিশ্বকাপে এক হাজার রান পূর্ণ করেছেন। পেছনে ফেলেছেন কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান মার্ক ওয়াও, সৌরভ গাঙ্গুলি এবং এমন কি স্যার ভিভ রিচার্ডসকেও। সাকিব সব সময় বলেন বোলিংটা তার সহজাত আর ব্যাটিংটা তার প্রচেষ্টার ফসল।সেই ফসলকে নিজের অধ্যাবসায় দিয়ে এমন জাগায় নিয়ে যাচ্ছেন তিনি যেখানে তাকে নিয়ে একচুল প্রশ্ন করার অবকাশ নেই। তবে কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটা গুঞ্জন উঠেছিল যে আইসিসি নাকি নিয়ম করেছে যে দল সেমিফাইনালে খেলতে পারবে না সেই দলের কোন খেলোয়াড় টুর্নামেন্ট সেরা হতে পারবে না। মানে শুধুমাত্র ব্যাক্তিগত সফলতা বিবেচনা করে টুর্নামেন্টের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচন করা হবে না।তবে এবার সেই শংকা দূর হলো, আর সেটা আইসিসি নিজেরাই দূর করেছে। ৯ জুলাই তাদের ওয়েবসাইটে সাকিবের রিপোর্ট কার্ড প্রকাশের পর গতকাল অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে টুর্নামেন্ট সেরার বিষয়ে একটা পোস্ট করা হয়েছে। সেখানে বিশ্বকাপের চলতি এই আসরের সেরা কয়েকজনের ছবি দিয়ে জানতে চাওয়া হয়েছে কে হতে চলেছেন এবারের আসরের সেরা ক্রিকেটার।সেখানে সবার আগে সাকিব আল হাসানের ছবিটি দেওয়া হয়েছে। তারপর ব্যাট হাতে দুর্দান্ত উইলিয়ামসন, ওয়ার্নার, রোহিতদের নাম। এই লিস্টে একমাত্র বোলার হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন গতবারের টুর্নামেন্ট সেরা ক্রিকেটার অজি পেসার মিচেল স্টার্ক। আইসিসির সেই পোস্টে সাকিব সাকিব জয়জয়কার। ভুলকরেও ভাববেন না যে সেখানে শুধুমাত্র বাংলাদেশিরা সাকিবের হাতে টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার দেখতে চাচ্ছেন। সেই পোস্টের কমেন্টে বক্সে বাংলাদেশিদের পাশাপাশি বিশ্বের সকল দেশের ক্রিকেট প্রেমীরাই টুর্নামেন্ট সেরা ক্রিকেটার হিসেবে সাকিবকে দেখতে চাচ্ছেন। সবচেয়ে গর্বের বিষয় অনেক ভারতীয়রাই কমেন্ট করে জানাচ্ছে রোহিত প্রায় সবগুলো ম্যাচ ভালো করেছেন। তিনি টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার যোগ্যতা রাখেন। একজন ভারতীয় হিসেবে অবশ্যই চাইবো তিনি পুরুষ্কাটি জিতুক। তবে নিরপেক্ষভাবে ভাবতে গেলে এবারের আসরের সেরা ক্রিকেটারের দৌড়ে বাকিদের থেকে অনেক এগিয়ে সাকিব আল হাসান।

 

সেখানে তারা মাত্র ৮ ম্যাচে ৬০০+ রান ও ১০+ উইকেটের কথা তুলে ধরতে ভুলেননি। তবে টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার দৌড়ে পিছিয়ে নেই সেই তালিকায় থাকা বাকি ক্রিকেটাররাও। বাকিদের মাঝে ফাইনাল ম্যাচ ছাড়াই এখন অবধি ৫৪৮ রান করা কেন উইলিয়ামসন সব থেকে বেশি এগিয়ে আছেন। তার এগিয়ে থাকার কারণটা সবারই জানা। একটি ভাঙ্গাচুরা দল নিয়ে তিনি আজ ফাইনালের ক্যাপ্টেন। দলের বিপদে এই তিনি বার বার হাল ধরেছেন। হাল সাকিবও ধরেছিলেন। কিন্তু দিনশেষে সাকিব হলেন পরাজিত দলের খেলোয়াড়, আর উইলিয়ামসন হলেন জয়ী দলের ক্যাপ্টেন। তাই এই হিসেবে কিইউ অধিনায়ক উইলিয়ামসন সাকিব থেকে কোন অংশেই পিছিয়ে নেই। অন্যদিকে এই দৌড়ে ভালোভাবেই আছেন ইংলিশদের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান জো রুট।তিনি ফাইনাল ম্যাচ ছাড়াই এখন অবধি করেছেন ৫৪৯ রান। তবে তার সেই রানের বিবেচনায় পিছিয়ে আছেন উইলিয়ামসন এমনকি সাকিব থেকেও। তবে তারপরও ইংল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হতে পারলে অবশ্য তিনিও হতে পারেন টুর্নামেন্ট সেরা ক্রিকেটার। অন্যদিকে এই বিশ্বকাপে সব থেকে বেশি ৫ শতকের মালিক রোহিত ও এক বছর নিষিদ্ধ থেকে আন্তর্জাতিকে ফেরা ওয়ার্নারও পেরিয়েছেন ৬০০ রানের কোঠা। তাদের থেকে খুব একটা পিছিয়ে নেই অজি কাপ্তান অ্যারেন ফিঞ্চ।সেরা হওয়ার এই দৌড়ে একমাত্র বিশেষজ্ঞ বোলার হিসেবে আছেন অজি গতি দানব মিচেল স্টার্ক।টুর্নামেন্ট জুড়ে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের নাকানিচুবানি খাইয়েছেন তার স্বভাবজাত বোলিংয়ে। এই বোলার এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ডও করেছেন। তবে সেমি থেকে বাদ পড়ায় টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার সম্ভাবনা কিছুটা হলেও কমে গেছে এই তিন অজি তারকার।কমে গেছেন রোহিতেরও। টুর্নামেন্টের সেরা প্লেয়ারের সর্বোচ্চ পয়েন্টের দিক থেকে এগিয়ে আছেন সাকিবই। দল সেমিফাইনালে খেললে নিঃসন্দেহে বলাই যায় সাকিবই হতেন টুর্নামেন্ট সেরা কারণ তিনিই একমাত্র অলরাউন্ডার যে কিনা টুর্নামেন্ট সেরার দৌড়ে সবার থেকে এগিয়ে আছেন।

বার্তা জগৎ২৪/ এম এ