ঢাকা, রবিবার, ১০ মাঘ ১৪২৭, ২৪ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Instagram Linkedin Youtube

Logo

বাংলাদেশ ক্রিকেটের কুয়াশাচ্ছন্ন যুগের আলোকবর্তিকা মোহাম্মদ রফিক

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:
প্রকাশিত: রবিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২১, ০১:১২
বাংলাদেশ ক্রিকেটের কুয়াশাচ্ছন্ন যুগের আলোকবর্তিকা মোহাম্মদ রফিক
ফাইল ফটো

বাংলাদেশের ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রথম ম্যান অব দ্য ম্যাচ কে হয়েছিল? জানি, অনেকে বলতে পারবেন না। অনেকে জানার জন্য গুগলের দ্বারস্থ হবেন। কারণ সেই সময়টাতে বাংলাদেশ ক্রিকেট টীমের পরিপক্কতা আজকের মতো ছিল না। তবে আজকের মত বা তার চেয়ে পরিপক্ক প্লেয়ার ছিল। ওয়ানডে ইতিহাসে বাংলাদেশের প্রথম ম্যান অব দ্য ম্যাচ হওয়া ক্রিকেটার মোহাম্মদ রফিক। ম্যাচটি ছিল কেনিয়ার বিপক্ষে। মোহাম্মদ রফিক ছিল অর্থডক্স বাহাতি স্পিনার। আর ব্যাট করতেন লোয়ার মিডল বা লোয়ার পজিশনে। কিন্তু দলের প্রয়োজনে তাকে উপরের দিকেও নামানো হতো।

সেই ম্যাচে মোহাম্মদ রফিক ওপেনিংয়ে নেমে ব্যাট হাতে ৭৭ রানের সাথে বল হাতে ৫৭ রানে নেন ৩ উইকেট। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম বাংলাদেশী বলার হিসাবে ১০০ নেন মোহাম্মদ রফিক। বাংলাদেশের প্রারম্ভিক সময়ে রফিক একজন আন্তর্জাতিক মানের স্পিনারের সক্ষমতা নিয়ে জন্মেছিলেন। রফিকের সময় তাকে বিশ্বের সেরা বাহাতি স্পিনার ভাবা হতো। ভেট্টরি, প্রাইসদের চাইতেও ব্যাটসম্যানদের আতঙ্কজনক বাহাতি স্পিনার ছিল মোহাম্মদ রফিক। কিন্তু মোহাম্মদ রফিকের দুর্ভাগ্য ছিল যে সে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এমন সময়ে খেলেছিল যখন বাংলাদেশ ইনিংস পরাজয়ে হারতো। তাই টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ টীম ফিল্ডিং করার সুযোগ পেত না। অথচ দ্বিতীয় ইনিংসেই স্পিনাররা উইকেট পেত বেশি। দুই ইনিংসের সুযোগ পায় নি বললেই চলে।

দুই একটা যা পেয়েছিলেন তাও ছিল না পাওয়ার মতো। তাই টেস্টের এক ম্যাচে দশ উইকেট না পাওয়ার আক্ষেপ রয়ে যায়। তবে টেস্টের ইনিংসে ৫ বা ৫ এর বেশি উইকেট পেয়েছেন ৭ বার। এক ইনিংসে বেস্ট ফিগার ছিল ৭৭ রানে ৬ উইকেট। এর পাশাপাশি টেস্টে একটি সেঞ্চুরিও আছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এই সেঞ্চুরিটা করেছিলেন।

বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে বেড়ে ওঠা রফিকের। একদম অসচ্ছল একটি পরিবার থেকে বাংলাদেশ ক্রীকেট দলে নাম লেখিয়েছিলেন। সেই সময় বাংলাদেশে বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের কাঠামো ছিল না।

মোহাম্মদ রফিক কোন ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান থেকে সৃষ্টি হন নি। তিনি নিজেই নিজেকে সৃষ্টি করেছেন। যে ছেলেটি মাঠে গরু চরাতে এসে নৌকার মাঝিকে বলে ঢাকায় পালিয়ে আসতো প্রতিদিন। কারণটা জীবনের কোন ফ্যান্টাসি নয়। কারণ ছিল ক্রিকেট। ঢাকায় আসলে ক্রিকেট খেলা যায়। ক্রিকেটের প্রতি যার এতো আবেগ, ক্রিকেট তাকে ছাড়তে পারে না। তাই ক্রিকেটের মহাকাশে বাংলাদেশের মতো মেঘাচ্ছন্ন খণ্ডে রফিক ছিলেন প্রজ্জ্বলিত নক্ষত্র।

রফিকের বাহাতি স্পিনার হয়ে ওঠার গল্পটা হয়তো অনেকে জানেন না।

অনেকে শুনে অবাক হবেন যে, রফিক ছিলেন বাহাতি পেসার। ওয়াসিম হায়দার নামের পাকিস্তানি খেলোয়াড়ের নেট প্র‍্যাকটিসে বল করছিলেন মোহাম্মদ রফিক। বাহাতে পেস বল করতেন। পেস বল করার এক পর্যায়ে স্পিন ছাড়লে ওয়াসিম হায়দার সেটা দেখে তাকে স্পিন বল করার পরামর্শ দেন। সেখান থেকে মোহাম্মদ রফিক বাহাতি স্পিনার। একবার হাবিবুল বাশারের নেতৃত্বে বাংলাদেশ টীম জিম্বাবুয়ে সফরে। তখন জিম্বাবুয়ে দলে ছিলেন সময়ের সেরা একজন বাহাতি স্পিনার প্রাইস। সেই টেস্টে প্রাইস ভাল করলে। সেখানে হাবিবুল বাশার বোলিং টিপসের জন্য মোহাম্মদ রফিককে প্রাইসের সাথে পরামর্শের কথা বলেন।

যেটাকে নিজের সামর্থ্যের প্রতি অপমান বলে মনে করে সিরিজের মাঝ পথে মোহাম্মদ রফিক দেশে চলে এসেছিলেন। এটাকে ঐ সময়ে কেউ কেউ মোহাম্মদ রফিকের উগ্রতা হিসাবে দেখেছে। তবে রফিকের আচরণটাকেও বাহবা জানিয়েছিলেন অনেকে। কেননা তারা মনে করতেন প্রাইসের চেয়ে রফিকের ভাল বোলিংয়ের সক্ষমতা বেশি।

এই মোহাম্মদ রফিকই মুলতান টেস্টে ক্রিকেট বিশ্বকে ক্রিকেটের সৌন্দর্য দেখিয়ে ছিলেন। মুলতান টেস্টে রফিক বোলিং করার উদ্দেশে দৌড় শুরু করলে বল ছাড়ার আগে ইনজামাম-উল-হক পপিং ক্রিজ পার হয়ে যান। ইনজামামকে রান আউট করার সুযোগ ছিল মোহাম্মদ রফিকের। মোহাম্মদ রফিক ইনজামামকে আউট করলে হয়তো বাংলাদেশ মুলতান টেস্টে ১ম টেস্ট জয়ের সুযোগ পেত। কিন্তু রফিক আউট না করায় বাংলাদেশ হারলেও জিতেছিল ক্রিকেটের সৌন্দর্য।

সেদিন রফিক তার সরল ভাষায় বলেছিলেন, ' আউটটা করলে আমরা জিতে যেতাম ঠিক; কিন্তু মানুষ আমাদের ছোটলোক ভাবত। আমরা ছোটলোক নই।

রফিককে যে শুধু আমরা চিনে ছিলাম তা নয়। রফিককে চিনেছিল বিশ্ব ক্রিকেট। কিন্তু দেশপ্রেমের স্মারক রেখেছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলির মাধ্যমে ভারতের হয়ে খেলার প্রস্তাব প্রত্যাখান করে। ১৯৯৫-২০০৮ দীর্ঘ ১৩ বছরের ক্যারিয়ারে সবসময় ছিলেন খেলোয়াড় সুলভ। মোহাম্মদ রফিক ছিলেন দেশের বাহাতি স্পিনারদের আইডল। রফিককে দেখে বাংলাদেশের অনেক ক্রিকেটার বাহাতি স্পিনার হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিল এবং অনেকদিন ধরে বাংলাদেশ টিমে বাহাতি স্পিনারদের জয় জয়াকার। কুর্নিশ জানাতে চাই বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক সময়ের তারকাদের তারকা মোহাম্মদ রফিককে।

বার্তাজগৎ২৪ / এম এ

আরো পড়ুন:

বিরুষ্কার ঘর আলোকিত করে এলো কন্যা সন্তান

ছেলেদের টেস্টে প্রথম নারী আম্পায়ার

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ খেলতে রোববার ঢাকায় আসছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

বিপন্মুক্ত সৌরভ গাঙ্গুলী, হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পাচ্ছেন আগামীকাল

৯০৬ কোটি রুপি হারানোর চিন্তা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের



ব্রিসবেন টেস্টে ভারতের ঐতিহাসিক জয়

খেলা ডেস্ক
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২১, ০৪:৫৬
খেলা
ফাইল ফটো

ব্রিসবেনে চতুর্থ ও শেষ টেস্টে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়াকে ৩ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে ভারত। ৩২৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ১৮ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় রাহানের দল।

গ্যাবায় বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফির শেষ টেস্টের শেষদিনে বিনা উইকেটে ৪ রান নিয়ে উইকেটে যান রোহিত ও গিল।  শুরুতেই রোহিত ৭ রান করে কামিন্সের শিকার হয়ে ফিরে আসেন প্যাভিলিয়নে। দলীয় ১৮ রানে প্রথম উইকেট পতনের পর কিছুটা চাপে পড়ে ভারত। পরে দারুণ প্রতিরোধ গড়েন গিল ও পুজারা। তাদের দুজনের প্রায় ৪০ ওভারের জুটিতে তোলে নেন ১১৪ রান। গিলের ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ ইনিংসটি থামে ৯১ রানে। এরপর চেতেশ্বর পুজারার ৫৬ ও রিশভ পন্তের অপরাজিত ৮৯ রানে ভর করে ৩ উইকেটের জয় তুলে নেয় ভারত।

অস্ট্রেলিয়া দুই ইনিংসে করে ৩৬৯ ও ২৯৪। আর ভারত প্রথম ইনিংসে করেছিল ৩৩৬ রান। টেস্টের ইতিহাসে তিনশ’র ওপরে রান তাড়া করে এটি ভারতের তৃতীয় জয়।

অস্ট্রেলিয়া ২য় ইনিংস: (আগের দিন ২১/০) ৭৫.৫ ওভারে ২৯৪ রান। (হ্যারিস ৩৮, ওয়ার্নার ৪৮, লাবুশেন ২৫, স্মিথ ৫৫, ওয়েড ০, গ্রিন ৩৭, পেইন ২৭, কামিন্স ২৮*, স্টার্ক ১, লায়ন ১৩, হেজেলউড ৯; সিরাজ ১৯.৫-৫-৭৩-৫, নটরাজন ১৪-৪-৪১-০, সুন্দর ১৮-১-৮০-১, শারদুল ১৯-২-৬১-৪, সাইনি ৫-১-৩২-০)

ভারতের ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ৩২৮) রোহিত শর্মা ৭, শুভমান গিল ৯১, পন্থ ৮৯, পূজারা ৫৬, রাহানে ২৪, ওয়াশিংটন সুন্দর ২২, কামিন্স ৫৬/৪।


আরো পড়ুন:

চাপ নেই তবে ভিন্ন এক ফের - সাকিব

৯০৬ কোটি রুপি হারানোর চিন্তা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের

বিপন্মুক্ত সৌরভ গাঙ্গুলী, হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পাচ্ছেন আগামীকাল

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ খেলতে রোববার ঢাকায় আসছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

ছেলেদের টেস্টে প্রথম নারী আম্পায়ার



সাকিবের মাথায় আইসিসির দশক সেরা টুপি

খেলা ডেস্ক
প্রকাশিত: রবিবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০২১, ০৫:৪১
আইসিসির দশক সেরা টুপি মাথায় সাকিব
আইসিসির দশক সেরা টুপি মাথায় সাকিব।

আইসিসির দশক সেরা ওয়ানডেতে স্থান পাওয়ার স্বীকৃতি হিসেবে বহুল কাঙ্ক্ষিত টুপি (ক্যাপ) পেয়েছেন সাকিব আল হাসান। সম্প্রতি আইসিসির দশক সেরা ওয়ানডে দলে স্থান পেয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

রোববার (১৭ জানুয়ারি) বহুল কাঙ্ক্ষিত সেই টুপি পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি দেন সাকিব। ছবি প্রকাশের পরপরই সমর্থকরা শুভেচ্ছা জানাতে থাকেন।

কিছুদিন আগেই আইসিসি ঘোষিত দশক সেরা ওয়ানডে একাদশে জায়গা করে নিয়েছেন বাংলাদেশের এই তারকা অলরাউন্ডার। গত এক দশকে দীর্ঘসময় ধরে টেস্ট এবং ওয়ানডেতে সমান দাপট ধরে রেখেছেন সাকিব। তাই সহজেই টাইগার ক্রিকেটের পোস্টার বয় সাকিব নতুন একাদশে জায়গা করে নেন।

সাকিব ছাড়াও সেরা এই ওয়ানডে দলে জায়গা পেয়েছেন তারকা খেলোয়াররা। দলে আছেন  ভারতের রোহিত শর্মা এবং অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার।

 আছেন বিরাট কোহলি, ডি ভিলিয়ার্সদের মতো ব্যাটসম্যানও। এছাড়াও উইকেটরক্ষক হিসেবে আছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক এম এস ধোনি। আছেন ইংলিশ ক্রিকেটার বেন স্টোকস। বোলারদের মধ্যে আইসিসির সেরা একাদশে জায়গা পেয়েছেন মিচেল স্টার্ক, ট্রেন্ট বোল্ট, লাসিথ মালিঙ্গা এবং প্রোটিয়া স্পিনার ইমরান তাহির।



আরো পড়ুন:

চসিক পরিচালিত স্কুল গুলোতে ভর্তির লটারি শুরু ১৩ জানুয়ারি থেকে

ভারতীয় সেনা প্রধান পাকিস্তান ও চীনকে কড়া হুঁশিয়ারি 

ফ্লাইট শিডিউল না জানায় কাল আসছে না ভ্যাকসিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ড. কামাল হোসেনের আজকের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত

ট্রাম্পের টুইটার স্থায়ীভাবে বন্ধ

চীন থেকে সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন নিয়ে তুরস্কে গণ টিকা শুরু 

সন্ত্রাসীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ আ.লীগ নেতারা, সংসদীয় কমিটির হস্তক্ষেপ দাবি

সমাজে মানুষের শান্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে- সংসদে রাষ্ট্রপতি

ভাড়া না দেওয়ায় শিশুসহ ভাড়াটিয়াকে তালাবদ্ধ, শিশুর মৃত্যু

কুড়িগ্রামে জমি নিয়ে সংঘর্ষ, নিহত ১

×
ক্রিকেট বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশের ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রথম ম্যান অব দ্য ম্যাচ কে হয়েছিল? জানি, অনেকে বলতে পারবেন না। অনেকে জানার জন্য গুগলের দ্বারস্থ হবেন। কারণ সেই সময়টাতে বাংলাদেশ ক্রিকেট টীমের পরিপক্কতা আজকের মতো ছিল না। তবে আজকের মত বা তার চেয়ে পরিপক্ক প্লেয়ার ছিল। ওয়ানডে ইতিহাসে বাংলাদেশের প্রথম ম্যান অব দ্য ম্যাচ হওয়া ক্রিকেটার মোহাম্মদ রফিক। ম্যাচটি ছিল কেনিয়ার বিপক্ষে। মোহাম্মদ রফিক ছিল