ঢাকা, রবিবার, ১০ মাঘ ১৪২৭, ২৪ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Instagram Linkedin Youtube

Logo

ইসির ভাতা ও খাবারের বিলই সাড়ে ৭ কোটি টাকা

শামীম
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ০৭ জানুয়ারী, ২০২১, ১২:১২
ইসির ভাতা ও খাবারের বিলই সাড়ে ৭ কোটি টাকা

প্রশিক্ষণের নামে ও ভুয়া বিল ভাউচার করে ৭ কোটি ৪৭ লাখ ৫৭ হাজার টাকা লোপাটের অভিযোগে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ নির্বাচন কমিশনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মচারীদের নামে দুদকে অভিযোগ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের ১০ আইনজীবী।

বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) সকালে তারা দুদক কার্যালয়ে এ অভিযোগ করেন।

এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ছাড়াও অভিযুক্ত করা হয় সব নির্বাচন কমিশনার, বর্তমান ও সদ্য সাবেক সচিবকেও।

অভিযোগে বলা হয়, নির্বাচন কমিশনের নীতিমালা না মেনে ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না নিয়ে প্রশিক্ষণে কোর্স ভাতা দেওয়া হয়েছে ৩ কোটি ৩৫ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। যেখানে উপদেষ্টা পদে ১৯ লাখ ৭৬ হাজার টাকা, বিশেষ বক্তা খাতে ১২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ও কোর্স পরিচালক খাতে ১৪ লাখ ৯৩ হাজার ৮০০ করা হয়।

নির্ধারিত হারের চেয়ে বেশি ভাতা দেওয়া হয়েছে ১ কোটি ৩২ লাখ ১২ হাজার ২৮০ টাকা এবং নিয়মের বাইরে অর্থনৈতিক কোড পরিবর্তন করে ভাতা দেওয়া হয়েছে ২ কোটি ৭৯ লাখ ৭০ হাজার ৪৭৫ টাকা।

এছাড়া প্রশিক্ষণে অধিকসংখ্যক খাবার কিনে ৩৭ লাখ ৫৩ হাজার টাকা এবং ভুল বিল ভাউচারে ১০ লাখ তিন হাজার ২৫০ টাকা ব্যয় নিয়েও আপত্তি জানিয়েছিল অডিট অধিদপ্তর। গাড়ি মেরামতে ৬ লাখ ৬৬৬ টাকার ব্যয়ের অডিটও নিষ্পত্তি হয়নি বলে অভিযোগ দাখিল করেন এই দশ আইনজীবী।

বার্তাজগৎ২৪ / এম এ

আরো পড়ুন:

মায়ের পরিচয়ে বেড়ে উঠবে ধর্ষণে জন্ম নেওয়া সন্তান

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ স্মরণে কলকাতায় বিশেষ আয়োজন

রাজধানীর খালে মিলল ২০ হাজার টন বর্জ্য

সমাজে মানুষের শান্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে- সংসদে রাষ্ট্রপতি

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে আনুষ্ঠানিক ক্ষমা চাইতে পারে পাকিস্তান!



দ্রুততম সময়ে এইচএসসির ফল প্রকাশে সংসদে বিল উত্থাপন

বার্তা জগৎ ডেস্ক
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২১, ০১:৪৩
জাতীয় সংসদ
ফাইল ফটো

করোনা মহামারীর কারণে আটকে থাকা গেলও বছরের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রকাশ করতে তিনটি পৃথক বিল উত্থাপন করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। 

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকেকে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হয়। শুরুতেই ইন্টারমিডিয়েট এন্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন অর্ডিন্যান্স ১৯৯৬ এর অধিকতর সংশোধনের জন্য ‘ইন্টারমিডিয়েট এন্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন সংশোধন বিল-২০২১' উত্থাপন করেন শিক্ষামন্ত্রী।

সংসদে উত্থাপিত এই বিলের বিরোধীতা করেছেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম। আনিত বিলটি সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক কি না তা নিয়ে বিরোধী দলীয় এমপি প্রশ্ন তুলেছেন।

বিলের বিরোধীতা করে বিরোধী দলীয় সাংসদ বলেন, সংবিধানের ১৭ (ক) ধরায় বলা আছে ‘একই পদ্ধতির গণমুখী ও সার্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য এবং আইনের দ্বারা নির্ধারিত স্তর পর্যন্ত সকল বালক-বালিকাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষাদান ।’ সেখানে শিক্ষাদানের জন্য ১২ বছর রাষ্ট্র দায়িত্ব নিয়েছে। এখন আপনি পরীক্ষা উঠায়াই দিবেন এটা সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক হবে না? সংবিধানের ওই ধারায় পরীক্ষার কথা বলা আছে, পদ্ধতির কথাও বলা আছে পরীক্ষা ওঠানোর কথা নেই তাই এটা সংবিধানের সাথে সাংঘষিক কি না?

বিরোধী দলীয় এই এমপি আরো বলেন, এই বিলে কার্যপ্রণালী বিধির ৭৭ (ঙ) অনুসরণ না করায় সংসদ সদস্যদের অধিকার খর্ব করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই বিলটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আমি এ বিলের বিরুদ্ধে না। কিন্তু এখানে কার্যপ্রণালী বিধি অনুসারে যে কোন বিল ৩ দিন আগে পাওয়ার কথা ছিল আমার। কিন্তু আমি তা পাইনি। 

এই প্রশ্নের জবাবে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, এই বিলের গুরুত্ব আছে। তাই আমার অনুমতিতেই বিলটি এসেছে। এই তিনটি বিল আমাদের পাস করে দিতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, এই বিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, এইচএসসি ফলাফলের জন্য শিক্ষার্থী অভিভাবক সবাই অপেক্ষা করছে। আমাদের ফলাফলও প্রস্তুত আছে।

কিন্তু আইনের কারণে আমরা ফলাফল প্রকাশ করতে পারছিনা। আর এবার বৈশ্বিক মহামারীর কারণে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি। তাই আমাদেরবে বিকল্প পদ্ধতিতে এ পরীক্ষার ফলাফল দিতে হচ্ছে। আর তাই আইনটি সংশোধনের প্রয়োজন পড়েছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, বিলটি মন্ত্রিপরিষদে আনার পর বলেছিলাম যেহেতু ১৮ তারিখ সংসদ শুরু হলে দ্রুত উত্থাপনের চেষ্টা করব। যেদিন সংসদ বিলটি পাশ করবে (যদি সংসদ পাস করে) তারপর আমরা দ্রুততার সাথে ফলাফল দেব। 

সংসদীয় কমিটিতে বিল তিনটি অনুমোদন লাভ করা হলে, চলতি অধিবেশনেই বিল তিনটি পাস হবে। এরপরই এইচএসসি ফলাফল প্রকাশ করা হবে।


আরো পড়ুন:

প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপে করোনায়ও স্বাভাবিক জীবনযাত্রা: স্পিকার

অর্থ আত্মসাতের মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল ১৬ ফেব্রুয়ারি

জাফরুল্লাহ ভ্যাকসিন নিয়ে প্রতারণার শিকার বাংলাদেশ

ভ্যাকসিন কিনতে ৪৩১৪ কোটি টাকা অনুমোদন । বার্তাজগৎ২৪

বিশ্বের ১০০ শক্তিশালী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ



হকারদের দখলে ফুটপাত, পথচারী ভোগান্তি চরমে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: রবিবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০২১, ০৪:১৪
ফুটপাত দখল করে চলছে হকারদের ব্যবসা
রাজধানীর ফুটপাত দখল করে হকারদের রমরমা ব্যবসা

বিল্লাল হোসেন। কুমিল্লা থেকে প্রতিনিয়তই ব্যবসায়ীক কাজে ঢাকায় আসেন। রাজধানীর ব্যস্ত পল্টন এলাকায় ঘুরে ঘুরে দোকানের জিনিসপত্র কিনেন তিনি। 'একেই তো করোনার দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হয়েছে। তার উপর রাস্তায় হকারদের যন্ত্রণায় হাটাই যায় না। আসলে রাস্তা হকারদের নাকি পথচারীদের তাই বড় প্রশ্ন।' এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে এভাবেই রাজধানী ঢাকার ফুটপাতে হকারদের কারণে ভোগান্তি কথা তুলে ধরছিলেন তিনি।

পাশেই পরিবার নিয়ে অনেক কষ্টে যাচ্ছিলেন বেসরকারি এনজিও কর্মকর্তা লোকমান হোসেন। তিনি জানান,'আজ ছুটির দিন হওয়াতে পরিবার নিয়ে ঘুরতে বেড়িয়েছি।

কিন্তু  ফুটপাতে যে একটু শান্তিতে হাটব তার সুযোগ নেই। ২ মিনিটের রাস্তা হেটে আসতে আমাদের ২০ মিনিট লেগেছে। আর মহিলা ও বাচ্চা সাথে থাকলে তো আর কথাই নেই।' এই কর্মকর্তা প্রশ্ন ছু্ঁড়ে বলেন, এই সমস্যা থেকে আমাদের কবে নিস্তার মিলবে?

রাজধানীর ব্যস্ততম পল্টন এলাকা। ব্যস্ততম এলাকা হওয়া সত্ত্বেও নেই কোনো ফুটওভার ব্রীজ। তবে বায়তুল মোকাররম মসজিদ মার্কেটের সামনে একটি ফুটওভার ব্রীজ থাকলেও হকারদের দখলে তার পুরোটাই। ভাসমান ফলের দোকান, স্টেশনারি দোকান, কাপড়ের দোকানে ঠাসা। যেন পুরো ওভারব্রীজই হকারদের দখলে। আবার অনেক দোকান ভাসমান থেকে রাস্তার উপরেই স্থায়ী রুপ নেয়।

তবে হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন, মুক্তি ভবনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়ের সামনের অংশের ফুটপাতে হকার ও ব্যবসায়ীদের উৎপাত কিছুটা কম।

শুধু পল্টন নয়, গুলিস্তান, দোয়েল চত্বর, মতিঝিল, ফার্মগেট, মালিবাগ, নিউমার্কেট, কাকরাইল, মৌচাক, পুরান ঢাকার চকবাজার এ সব এলাকার ফুটপাতের প্রায় একই চিত্র। কোথাও কোথাও দোকানের সঙ্গে ভ্রাম্যমাণ ভিক্ষুক ও টোকাইদের উপদ্রবও অতিষ্ঠ করে পথচারীদের। প্রায় সবখানেই সকাল থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত ফুটপাত হকারদের দখলে থাকে।

এসব এলাকায় অন্তত ৫ জন পথচারীর সঙ্গে কথা হয়। তারা জানান, আমাদের দুর্ভোগ যেন শেষ হওয়ার নয়। একদিকে উচ্ছেদ অভিযান হয়, ফের আবার একইরকম ভাবে ফুটপাত দখল হচ্ছে। আমাদেন পথচারি হিসেবে একটাই দাবি দখল মুক্ত ফুটপাত চাই।

পুরান ঢাকার এক নারী পথচারী বলেন, ‘ফুটপাত দিয়ে হাঁটার সময় মানুষের সঙ্গে ধাক্কা লাগে।

আবার কেউ কেউ ইচ্ছা করেই ধাক্কা দেয়। এতে খুবই বিব্রত হই। বিশেষ করে ফুটপাত ব্যবহারে নারী পথচারীদের বিড়ম্বনা অনেক বেশি।’

তবে ফুটপাতে অবস্থান নেয়া হকার ও ব্যবসায়ীরা বলছেন ভিন্ন কথা। হকার আতিয়ার বলেন, ১০ বছর যাবৎ ফুটপাতে ব্যবসা করে সংসার চালাই। ফুটপাত থেকে তুলে দিলে পেটের দায়ে এখানেই আবার বসতে হয়। সরকার যদি আমাদের জন্য আলাদা মার্কেট করে দেয় তাহলে আমরা আর ফুটপাতে বসবো না।

ফুটপাত দখলমুক্ত করণ ও পথচারী সমস্যা সমাধানের সার্বিক বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ফুটপাত দখলমুক্ত রাখতে প্রতিনিয়ত অভিযান চালানো হচ্ছে। কিন্তু তারপরও আবার ফুটপাত দখল হয়ে যাচ্ছে।

করোনার কারণে আমাদের অভিযান তেমন জোরালো হয়নি, করোনার পরবর্তী সময়ে আরো জোরদার অভিযান পরিচালনা করা হবে।



আরো পড়ুন:

গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ২৩, শনাক্ত ৫৬৯ এবং সুস্থ ৬৮১

ঘণ কুয়াশায় ফেরি চলাচল বন্ধ, আটকে আছে ৬টি ফেরি

ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা উপকরণ বিতরণের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর স্ত্রী'র মৃত্যু

ভাড়া না দেওয়ায় শিশুসহ ভাড়াটিয়াকে তালাবদ্ধ, শিশুর মৃত্যু

চায়ের সাথে যা খেতে মানা

জঙ্গিবাদের শিকড় উপড়ে ফেলতে হবে: আইজিপি

বড় শাস্তির মুখে মেসি

৩ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ

কক্সবাজার টেকনাফ, নয়াপাড়া, মোছনী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুনে পুড়ে গেছে ৫০০ শতাধিক ঘর

×
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

প্রশিক্ষণের নামে ও ভুয়া বিল ভাউচার করে ৭ কোটি ৪৭ লাখ ৫৭ হাজার টাকা লোপাটের অভিযোগে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ নির্বাচন কমিশনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মচারীদের নামে দুদকে অভিযোগ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের ১০ আইনজীবী। বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) সকালে তারা দুদক কার্যালয়ে এ অভিযোগ করেন। এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ছাড়াও অভিযুক্ত করা হয় সব নির্বাচন কমিশনার, বর্তমান ও