ঢাকা, রবিবার, ১০ মাঘ ১৪২৭, ২৪ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Instagram Linkedin Youtube

Logo

ভ্যাকসিন কিনতে ৪৩১৪ কোটি টাকা অনুমোদন । বার্তাজগৎ২৪

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৫ জানুয়ারী, ২০২১, ০৫:১২
ভ্যাকসিন কিনতে ৪৩১৪ কোটি টাকা অনুমোদন

প্রকল্পের আওতায় করোনা ভ্যাকসিন ক্রয়, সংরক্ষণ ও সরবরাহ বাবদ মোট ৪ হাজার ৩১৪ কোটি ৪৯ লাখ ১৭ হাজার টাকা চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

২০২১ সালের জুন পর্যন্ত ৩ হাজার ৩০ কোটি টাকা খরচ হবে ভ্যাকসিন কিনতে, বাকি অর্থ পর্যায় ক্রমে খরচ হবে প্রকল্পের আওতায়।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি-ডিসেম্বরের মধ্যে ভ্যাকসিন পাওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে পরিকল্পনা কমিশনকে অবগত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে, কোনো দেশ থেকে ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হবে তা এখনো জানা যায়নি। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের আওতায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাবিত ‘কোভিড-১৯ ইমার্জেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড প্যানডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস’ প্রথম সংশোধিত প্রকল্পের আওতায় এমন উদ্যোগ নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রকল্পটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হয়। সভায় প্রকল্পটি চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দেওয়া হয়। মূলত ভ্যাকসিন কেনার জন্যই চলমান প্রকল্পের আওতায় এই অর্থ অনুমোদন দেওয়া হয়। ভ্যাকসিন কেনাসহ একনেক সভায় এ দিন মোট ৬টি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

গণভবন থেকে সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। অন্যদিকে শেরে-বাংলা নগরে মন্ত্রিসভা কমিটি পরিষদ (এনইসি) সম্মেলনকক্ষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী-সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রকল্পের পরিচালক ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বাংলানিউজকে বলেন, প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এটা আমাদের জন্য অন্যতম মাইলকফলক। বিশ্বব্যাংক টিকা কেনা প্রকল্পে ৫০ কোটি ডলার দিয়েছে, এটা ইতিবাচক। টিকা কেনা প্রকল্প অনুমোদনের মাধ্যমে দেশের মানুষের মধ্যে ইমিউনিটি সিস্টেম বাড়ছে। টিকা কেনা প্রকল্প অনুমোদনের মাধ্যমে মেঘলা দিন কেটে যাচ্ছে, আমরা আলোর মুখ দেখছি। দেশের অর্থনীতি সচল হবে। আমরা বিশ্বাস করি প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমাদের দেশের অর্থনীতি আগের অবস্থানে ফিরে আসবে।

মানুষের জীবন যাত্রার মানোন্নয়ন হবে করোনা ভীতি কেটে যাবে। ’

তিনি বলেন, ভ্যাকসিন দেওয়ার অনুমোদিত নীতিমালা সর্বসাধারণের বোধগম্যভাবে সারসংক্ষেপ আকারে প্রণয়ন এবং ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়ার একটি সহজবোধ্য ফ্লো-চার্ট ডিপিপিতে সংযুক্ত করতে হবে। প্রতিটা উপজেলায় ভ্যাকসিন দেওয়ার বিষয়ে প্রচারের জন্য ব্যানার, মাইকিং ও প্রকাশনা খাতে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ রাখতে নির্দেশ দিয়েছে পরিকল্পনা কমিশন। প্রকল্পের আওতায় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকার জন্য একটি করে মোট দুটি মোবাইল ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট ভ্যানের সংস্থান রাখতে বলা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দ্বৈততা পরিহারপূর্বক গঠিত ১০ শয্যার ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিট এবং ১০টি জেলায় মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যাবস্থপনা প্ল্যান্ট স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছে পরিকল্পনা কমিশন।

ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, করোনা মোকাবিলায় বিশ্বব্যাংকের জরুরি ঋণ ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে ২০২০ সালের ১৮ এপ্রিল প্রকল্পটির অনুমোদন হয়েছিল। সেই সময় প্রকল্পটি খুব জরুরি বিবেচনায় দ্রুত অনুমোদনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। সমগ্র বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে আক্রান্ত ও মৃত্যু ক্রমশ বাড়তে থাকায় কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি), বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ১০ কোটি ডলারের লেন্ডিং করতে সম্মত হয়েছে, যা এ প্রকল্পের মাধ্যমে ব্যয় করা হবে। তাছাড়া প্রকল্প সংশোধনের প্রধান কারণ হিসেবে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ক্রয় বাবদ কার্যক্রম অন্তর্ভুক্ত করণ করা হয়েছে।

প্রকল্পটিতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৭৮৬ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ১৭২ কোটি ৪৫ লাখ এবং বিশ্বব্যাংক ও এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি) ঋণ ৬ হাজার ৬১৪ কোটি ১৩ লাখ টাকা।

বার্তাজগৎ২৪ / এম এ

আরো পড়ুন:

মায়ের পরিচয়ে বেড়ে উঠবে ধর্ষণে জন্ম নেওয়া সন্তান

রাজধানীর খালে মিলল ২০ হাজার টন বর্জ্য

সমাজে মানুষের শান্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে- সংসদে রাষ্ট্রপতি

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে আনুষ্ঠানিক ক্ষমা চাইতে পারে পাকিস্তান!

রাজধানীর সড়কে প্রাণ গেল দম্পতির



দ্রুততম সময়ে এইচএসসির ফল প্রকাশে সংসদে বিল উত্থাপন

বার্তা জগৎ ডেস্ক
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২১, ০১:৪৩
জাতীয় সংসদ
ফাইল ফটো

করোনা মহামারীর কারণে আটকে থাকা গেলও বছরের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রকাশ করতে তিনটি পৃথক বিল উত্থাপন করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। 

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকেকে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হয়। শুরুতেই ইন্টারমিডিয়েট এন্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন অর্ডিন্যান্স ১৯৯৬ এর অধিকতর সংশোধনের জন্য ‘ইন্টারমিডিয়েট এন্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন সংশোধন বিল-২০২১' উত্থাপন করেন শিক্ষামন্ত্রী।

সংসদে উত্থাপিত এই বিলের বিরোধীতা করেছেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম। আনিত বিলটি সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক কি না তা নিয়ে বিরোধী দলীয় এমপি প্রশ্ন তুলেছেন।

বিলের বিরোধীতা করে বিরোধী দলীয় সাংসদ বলেন, সংবিধানের ১৭ (ক) ধরায় বলা আছে ‘একই পদ্ধতির গণমুখী ও সার্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য এবং আইনের দ্বারা নির্ধারিত স্তর পর্যন্ত সকল বালক-বালিকাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষাদান ।’ সেখানে শিক্ষাদানের জন্য ১২ বছর রাষ্ট্র দায়িত্ব নিয়েছে। এখন আপনি পরীক্ষা উঠায়াই দিবেন এটা সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক হবে না? সংবিধানের ওই ধারায় পরীক্ষার কথা বলা আছে, পদ্ধতির কথাও বলা আছে পরীক্ষা ওঠানোর কথা নেই তাই এটা সংবিধানের সাথে সাংঘষিক কি না?

বিরোধী দলীয় এই এমপি আরো বলেন, এই বিলে কার্যপ্রণালী বিধির ৭৭ (ঙ) অনুসরণ না করায় সংসদ সদস্যদের অধিকার খর্ব করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই বিলটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আমি এ বিলের বিরুদ্ধে না। কিন্তু এখানে কার্যপ্রণালী বিধি অনুসারে যে কোন বিল ৩ দিন আগে পাওয়ার কথা ছিল আমার। কিন্তু আমি তা পাইনি। 

এই প্রশ্নের জবাবে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, এই বিলের গুরুত্ব আছে। তাই আমার অনুমতিতেই বিলটি এসেছে। এই তিনটি বিল আমাদের পাস করে দিতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, এই বিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, এইচএসসি ফলাফলের জন্য শিক্ষার্থী অভিভাবক সবাই অপেক্ষা করছে। আমাদের ফলাফলও প্রস্তুত আছে।

কিন্তু আইনের কারণে আমরা ফলাফল প্রকাশ করতে পারছিনা। আর এবার বৈশ্বিক মহামারীর কারণে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি। তাই আমাদেরবে বিকল্প পদ্ধতিতে এ পরীক্ষার ফলাফল দিতে হচ্ছে। আর তাই আইনটি সংশোধনের প্রয়োজন পড়েছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, বিলটি মন্ত্রিপরিষদে আনার পর বলেছিলাম যেহেতু ১৮ তারিখ সংসদ শুরু হলে দ্রুত উত্থাপনের চেষ্টা করব। যেদিন সংসদ বিলটি পাশ করবে (যদি সংসদ পাস করে) তারপর আমরা দ্রুততার সাথে ফলাফল দেব। 

সংসদীয় কমিটিতে বিল তিনটি অনুমোদন লাভ করা হলে, চলতি অধিবেশনেই বিল তিনটি পাস হবে। এরপরই এইচএসসি ফলাফল প্রকাশ করা হবে।


আরো পড়ুন:

প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপে করোনায়ও স্বাভাবিক জীবনযাত্রা: স্পিকার

অর্থ আত্মসাতের মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল ১৬ ফেব্রুয়ারি

জাফরুল্লাহ ভ্যাকসিন নিয়ে প্রতারণার শিকার বাংলাদেশ

বিশ্বের ১০০ শক্তিশালী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

ইসির ভাতা ও খাবারের বিলই সাড়ে ৭ কোটি টাকা



বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ স্মরণে কলকাতায় বিশেষ আয়োজন

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: সোমবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২১, ১০:১৫
বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ স্মরণে কলকাতায় বিশেষ আয়োজন
ফাইল ফটো

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণকে স্মরণ করতে কলকাতার ব্রিগেড ময়দানে বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয় ব্যতিক্রম আয়োজন করবে।  এরই মধ্যে সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত হয়ে গেছে। সেই সাথে মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননাপ্রাপ্ত ভারতীয়দের ওই মাঠে সংবর্ধনা জানানো হবে। আমন্ত্রণ থাকবে মৈত্রী সম্মাননা প্রাপ্তদেরও।

১৯৭২ সালে ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সময় কলকাতার মানুষ অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন বঙ্গবন্ধুর জন্য। তারা চাচ্ছিলেন যে মানুষটি স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি তিনি কলকাতার মাটি ছুঁয়ে যেনও বাংলাদেশে ফেরেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু আগে নিজের দেশের মাটিতে ফিরবেন বলে সংকল্প নিয়েছিলেন। তবে যে শহরের মানুষ তার দেশের স্বাধীন হওয়ার পেছনে বড় অবদান রেখেছে সে মানুষগুলোকেও তিনি বঞ্চিত করেননি।

কলকাতা হয়ে ঢাকা ফেরার পথে কলকাতা বিমানবন্দরে বার্তা দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু।

খুব শিগগিরই তিনি আসছেন বলে জানান সে বার্তায়। কথা অনুযায়ী বাংলাদেশে ফেরার এক মাস পরই ৬ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় পা রাখেন তিনি।

তাই ঐতিহাসিক ৬ ফেব্রুয়ারি দিনকে আরও স্মরণীয় করতে বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে; বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে মৈত্রী সম্মাননা প্রাপ্ত ভারতীদের সংবর্ধনা জানাবে ঐতিহাসিক বিগ্রেড ময়দানে।

কলকাতার বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনের প্রথম সচিব মোফাকখারুল ইকবাল বলেন, ১৯৭২ সালে ব্রিগেড ময়দানে বঙ্গবন্ধুর জনসভাকে ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় জনসভা বলে ধরা হয়। সেই জনসভাকে সম্মান জানিয়ে বাংলাদেশ সেই ব্রিগেড ময়দানে একই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।



আরো পড়ুন:

গাছে বেধে দুই কিশোরকে মারপিটের মামলায় দুই আসামী কারাগারে

এসএসসিতে অটোপাসের দাবিতে মানববন্ধন

তৃতীয় বারের মতো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির নেতা হলেন শাহ আলী ফরহাদ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩০ জানুয়ারী পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে

হকারদের দখলে ফুটপাত, পথচারী ভোগান্তি চরমে

গত ২৪ ঘন্টায় (১৫ জানু.) করোনাভাইরাসে মৃত্যু ১৩, শনাক্ত ৭৬২ এবং সুস্থ ৭১৮

ঘণ কুয়াশায় ফেরি চলাচল বন্ধ, আটকে আছে ৬টি ফেরি

চসিক নির্বাচনী প্রচারণায় আওয়ামী লীগের দু'গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ

বাংলাদেশে প্রথম মাসেই করোনার টিকা পাবেন ৫০ লাখ মানুষ

ভারতীয় সেনা প্রধান পাকিস্তান ও চীনকে কড়া হুঁশিয়ারি 

×
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

প্রকল্পের আওতায় করোনা ভ্যাকসিন ক্রয়, সংরক্ষণ ও সরবরাহ বাবদ মোট ৪ হাজার ৩১৪ কোটি ৪৯ লাখ ১৭ হাজার টাকা চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত ৩ হাজার ৩০ কোটি টাকা খরচ হবে ভ্যাকসিন কিনতে, বাকি অর্থ পর্যায় ক্রমে খরচ হবে প্রকল্পের আওতায়। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি-ডিসেম্বরের মধ্যে ভ্যাকসিন পাওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে পরিকল্পনা